Breaking News

হয়তো এটাই আরশ আর নিহার শেষ দেখা


   


নিহা,, ক্লাস তো শেষ... বাসায় যাবেনা...??
(আরশ)
-- (নিহা চুপ করে অসহায়ের মতো আরশের দিকে
তাকিয়ে আছে)...!!
--আজব তো, এরকম বোবার মতো আমার দিকে
তাকিয়ে আছো কেনো?? বাসায় যাবেনা...??
--আরশ, আমি আর বাসায় ফিরে যেতে চাইনা,, বাবা
আমার বিয়ে ঠিক করে ফেলছে... আজকেই মনে হয়
আমার শেষ ক্লাস... আমি আর বাসায় ফিরে
যাবোনা...!!
--হিহিহি,, মজা করতে করতে এখন নিজের বিয়ে
নিয়েও মজা করা শুরু করছো...? মাত্রই তো আমরা
অনার্স ২য় ইয়ারে উঠলাম,, এখন আবার কিসের
বিয়ে?? ফান বন্ধ করো প্লিজ...!!
কথাটা বলে নিহার চোখের দিকে তাকায় আরশ,,
নিহার চোখ থেকে পানি গড়িয়ে পড়ছে... এই পানিটুকু
আর যাইহোক, কখনো মজা হতে পারেনা...!!
--আংকেল কি সত্যি তোমার বিয়ে ঠিক
করেছেন??...!!
আরশের প্রশ্নের উত্তর মুখ দিয়ে দিতে পারেনা
নিহা,, কাঁদতে কাদঁতে মাথা নেড়ে হ্যা সূচক উত্তর
দেয় সে...! নিহা আরশের হাত ধরে বলে-
--আরশ,, বাবা এবার সত্যি সত্যি আমাকে বিয়ে
দিয়ে দিবে... ছেলে অনেক ভালো জব করে,, বিয়ের
পর আমাকে স্টাডিও করতে দিবে... এরকম পাত্র
বাবা কখনোই হাতছাড়া করবেন না,,, কিন্তু আমি
যে তোমাকে ছাড়া অন্য কাউকে কখনো কল্পনাও
করতে পারিনা... আমি তোমাকে না পেলে সত্যি মরে
যাবো... কিছু একটা করো প্লিজ,, আমাকে এখন
তোমার বাসায় নিয়ে যাও...!!
নিহার কথা শুনে নিহার চোখের দিকে তাকায় আরশ,,
এরকম কান্না করতে মেয়েটাকে সে কখনোই
দেখেনি... আরশ নিহার চোখের দিকে তাকিয়ে শক্ত
করে নিহার হাতটা ধরে বলে-
--আমি আছিতো,, বিশ্বাস রাখো আমার উপর...
আমি নিশ্চই কিছু একটা করবো... আমাকে আজকের
দিনটা সময় দাও প্লিজ... তুমি এখন বাসায় যাও,
আমি দেখি কি করা যায়...!!
আরশের কথা শুনে ডান হাত দিয়ে চোখটা মুছতে
মুছতে বাসার দিকে হাঁটতে শুরু করে নিহা... তার মনে
আরশের উপর অনেকটা বিশ্বাস,, আরশ নিশ্চই
কিছু একটা করবে... নিশ্চই করবে...!!
.
নিহার বিয়ে হয়ে যাবে শুনার পর আরশের মাথা
একদম কাজ করছেনা... মাথায় একটাই চিন্তা
ঘুরপাক খাচ্ছে, "কি করে নিহার বিয়ে বন্ধ করা
যায়"... কি করে...?? কথাগুলো ভাবতে ভাবতে
আম্মুর রুমের দিকে হাটাঁ শুরু করে আরশ...!!!
--আম্মু,, তোমার সাথে আমার একটা জুরুরি কথা
আছে...!!
ছেলের মুখে জুরুরি শব্দটা শুনে আরশের মুখের দিকে
তাকালেন মিসেস মেহরাব,, আরশের চেহারাটা
প্রচন্ড সিরিয়াস টাইপের মনে হচ্ছে...
এরকম চেহারা আরশের খুব একটা দেখা যায়না...!!
--কিছু হইছে বাবা?? কোনো সিরিয়াস কিছু...??
--হুম আম্মু,, আমি কথাটা কিভাবে তোমাকে বলবো
বুঝতে পারছিনা,, কিন্তু আমি বিশ্বাস করি তুমি
আমার প্রবলেমটা বুঝবে...!!
--আরশ,, আম্মুকে সব খুলে বলতো,, হইছে টা
কি??...!!
--আম্মু, আমি একটা মেয়েকে ভালোবাসি...!!
ছেলের মুখে কথাটা শুনে মুচকি হাসি দিলেন মিসেস
মেহরাব... আরশের গালে আলতো করে একটা থাপ্পড়
দিয়ে বললেন-
--উফফফ,, ধুর বোকা ছেলে, এই কথাটা বলার জন্য
তুই এরকম মুখ করে দাঁড়িয়ে ছিলি...?? আমি আরো
ভাবলাম কি না'কি... ভালোবাসিস এটা তো ভালো
কথা,, মেয়েটাকে একদিন নিয়ে এসে আম্মুর সাথে
পরিচয় করিয়ে দিস...!!
--আম্মু,, আমি মেয়েটাকে বিয়ে করতে চাই...!!
--হুম বিয়ে করবি তো,, আমি আর তোর পাপা
সবসময় তোর পছন্দ সবার আগে রাখি,, এবার ও
রাখবো... মেয়েটাকে নিয়ে আয় একদিন, আমরা কথা
বলি ওর সাথে... তারপর তোর পড়া শেষ হয়ে গেলে
আমরা ওর বাবা-মায়ের সাথে কথা বলবো...!!
--না আম্মু,,, অনেক দেরি হয়ে যাবে... আমি
২-৩দিনের মধ্যেই বিয়েটা করতে চাই আম্মু...!!
আরশের মুখে ২-৩দিন শুনে মিসেস মেহরাবের
হাসিভরা মুখটা মুহৃর্তের মধ্যেই কালো হয়ে গেলো...
মাত্র অনার্স সেকেন্ড ইয়ারে পড়া ছেলের মুখে
এরকম কথা শুনতে হবে এটা তিনি কখনোই কল্পনা
করেন নি...!!
--তোর মাথা ঠিক আছে আরশ?? তুই এখন মাত্র
অনার্স সেকেন্ড ইয়ারে... এখন তোর ক্যারিয়ার
গড়ার সময়,, বিয়ে করার নয়...!!
--আম্মু, এখন বিয়ে না করলে আমার ভালোবাসার
মানুষটাকে চিরদিনের জন্য হারাতে হবে... তুমি
পাপাকে একটু বুঝাও আম্মু,, প্লিজ...!!
--জাস্ট চুপ করো আরশ,, ছোট থেকে তুমি যা
চাইছো তাই দিয়ে আসছি,, কিন্তু তোমার এই আবেগ
আর পাগলামিটাকে আমরা কখনোই মেনে নিবনা...
তুমি কি করে ভাবলে এই কথাটা আমি তোমার
পাপাকে গিয়ে বলবো??...!!
--আম্মু প্লিজ,, এরকম করিওনা,, একটু শুনো
আমার কথা...!!
--আমি বলছিনা চুপ থাকতে,,, কি করে তোমার
মাথায় এসব চিন্তা আসে?? তোমার পাপা শুনলে
কতোটা কষ্ট পাবে একবার ও ভাবছো?? ওনার
স্বপ্ন তুমি,, ওনার এতো কষ্ট করে টাকা ইনকাম
কারন তুমি,, ওনার রাতে ঘুম না আসার চিন্তা
তুমি,, শুধুই তুমি... সেই পাপা যদি শুনেন তার
২০বছরের ছেলে পড়াশুনায় মন না দিয়ে বিয়ে করতে
চাইছে, তখন তার অবস্থা কি হবে একবার ও
ভাবছো?? নিজের রুমে গিয়ে কথাগুলো চিন্তা করে
দেখো... এখন যাও এখান থেকে...!!
আম্মুর কথা শুনে অসহায়ের মতো রুমে চলে যায়
আরশ...!! ঠিক এই মুহৃর্তে আরশের কি করা উচিত
আরশ সেটা জানেনা... সে শুধু জানে, তার পাপাকে সে
কষ্ট দিতে পারবেনা,, কখনোই না...!!
.
পরেরদিন সকালে ক্লাসের সামনে দাঁড়িয়ে আরশের
জন্য অপেক্ষা করছে নিহা... আরশকে রিক্সা থেকে
নামতে দেখেই দৌড়ে আরশের কাছে যায় সে..!!
--আরশ,, আমি তোমার জন্যই অপেক্ষা
করছিলাম...!!
--আমাকে ভুলে যাও নিহা...!!
আরশের মুখ থেকে এরকম কথা শুনার জন্য একদম
রেডি ছিলোনা নিহা,,, কথাটা শুনেই বিশাল রকমের
ধাক্কা খেলো সে...!!
--কি বললে আরশ??..
--আমাকে ভুলে যাও তুমি,,, যদি এখন আমি তোমাকে
বিয়ে করি, তাহলে আমার পাপা-আম্মু অনেক কষ্ট
পাবে,, তোমার আব্বু-আম্মুও অনেক কষ্ট পাবে...
ওনাদের কষ্ট দিয়ে আমরা কখনোই সুখি হতে
পারবনা নিহা,, তার চাইতে ভালো এটাই হবে যে,
তুমি তোমার আব্বুর পছন্দ করা ছেলেকে বিয়ে করে
ফেলো... (কথাগুলো নিচের দিকে তাকিয়ে বললো
আরশ, নিহার মুখের দিকে তাকিয়ে তার পক্ষে
কথাগুলো বলা সম্ভব ছিলোনা)...!!
--আরশের মুখে কথাগুলো শুনে ২পা পিছন দিকে হেটেঁ
গেলো নিহা,, ফুপিয়ে ফুপিয়ে কান্না করতে করতে
আরশকে বললো-
--ঠিক আছে, তুমি যেটা চাও সেটাই হবে...!!
এই মুহৃর্তে কান্না করতে করতে আরশের কাছ থেকে
একটু একটু করে দূরে চলে যাচ্ছে নিহা... আরশ
একবার ও ফিরে তাকাচ্ছে'না নিহার দিকে,,, কোনো
একটা অজানা ভয় কাজ করছে তার ভিতর... নিহার
চোখের পানি দেখে যদি তার ভিতর মায়াটা বেড়ে
যায়?? যদি নিহাকে আটকাতে মন চায়?? তাই
নিহার দিকে তাকাবেনা সে,, হয়তো এটাই আরশ আর
নিহার শেষ দেখা... হয়তো এটাই শেষ কথা...!!
.
"""২বছর পর"""
.
নিহা নামের মেয়েটার আজকে বিয়ের ২বছর পূর্ণ
হলো,,, একটা ৬মাসের ছেলেও আছে তার... বিয়ের
প্রথম বছর আরশকে খুব মনে পড়তো নিহার,,
কিন্তু একটা সন্তান হওয়ার পর আরশকে এখন
আর প্রতিদিন মনে পড়েনা,, মাঝে মাঝে তার মনেহয়
২বছর আগে আরশ নামে তার লাইফে কেউ একজন
ছিলো... কেউ একজন...!!
.
আরশ নামের ছেলেটার কিছুদিন আগেই অনার্স
কমপ্লিট হলো,, এই ২বছরে পড়াশুনায় খুব একটা
মন দিতে না পারলেও রেজাল্ট খুব একটা খারাপ
হয়নি,, এই ২বছরে এমন একটা রাত নেই, যে রাতটা
সে নিহাকে মিস করেনি... নিহার জন্য কতোবার যে
তার চোখের পানিতে বালিশটা ভিজেছে, তার হিসাব
কেউই জানেনা...!! তারপরেও সে প্রতিদিন সকালটা
একটা মিথ্যা হাসি দিয়ে শুরু করে, হাসিটা স্রেফ তার
পাপার জন্য,, তার আম্মুর জন্য...!!
.
'""আরো ৩ বছর পর"""
.
নিহা নামের মেয়েটা এখন ২সন্তানের মা,, গতবছর
সে আরো একটা ছেলে সন্তানের জন্ম দেয়... এইতো
৫বছর আগেও আরশ নামে তার লাইফে কেউ একজন
ছিলো, নিহার সেটা এখন আর মনে পড়েনা... নিহার
মাথায় এখন ১টাই চিন্তা, তার ২টা ছেলের ফিউচার
সুন্দর করতে হবে... ওদের মানুষের মতো মানুষ
বানাতে হবে...!!
.
আরশ নামের ছেলেটা এখন পড়াশুনা শেষ করে ভালো
একটা জব করে,, পাপা আর আম্মুর মুখে হাসি দেখেই
শুরু হয় তার প্রতিটাদিন,, কিন্তু আজও কোনো
একটা রাতে ঘুমাতে যাবার সময় তার একা লাগে,,
খুব একা লাগে... নিহা নামের কেউ একজন এখন
অন্য কারো পাশের বালিশে ঘুমিয়ে আছে, কথাটা
ভাবতেই তার বুকটা ধুক করে উঠে... হয়তো নিহার
পাশের বালিশটায় আজকে তার থাকার কথা ছিলো...!
তাই একটা দীর্ঘশ্বাস আজও থেকে গেছে আরশের
মনের ভিতর...!!!
.
--বাবা আরশ,, এখন তো তোমার লাইফটা ভালোই
গুছিয়ে নিয়েছো... এবার আমরা একটা বউমা নিয়ে
আসি..?? (মিঃ মেহরাব)...!!
পাপার প্রশ্ন শুনে আরশ মুচকি হেসে বলে-
--ভুল বললে পাপা, লাইফটা আমি গুছিয়ে নেইনি,,
তুমিই গুছিয়ে দিয়েছো... আর বউমা?? সেটা
তোমাদের যা ভালো মনে হয় তাই করো...!!
--ঠিক আছে,, তোমার তাহলে কেমন মেয়ে পছন্দ
আমাদের বলো??...!!
"কেমন মেয়ে পছন্দ" প্রশ্নটা শুনেই আরশ আনমনা
হয়ে যায়,, চোখের সামনে ভেসে উঠে নিহার মুখের
ছবি,,, ওর দুষ্টুমি,, ওর কেয়ারিং সবকিছু আরশের
চোখের সামনে ভাসতে থাকে... মুহৃর্তের মধ্যেই
৫বছর আগে চলে যায় আরশ...!!
--এই আরশ,, কোথায় হারিয়ে গেলে??...
পাপার ডাক শুনে কল্পনা কাটে আরশের... পাপাকে
মুচকি একটা হাসি দিয়ে বলে-
--বললাম তো পাপা, তোমরা যা ভালো বুঝো তাই
করো... আমার তেমন কোনো পছন্দ নেই...!!
--আমি জানতাম তুমি এটাই বলবে... এইজন্য আমি
আগে থেকে সব ঠিক করে রেখেছি... ছবিটা দেখোতো
পছন্দ হয় কি'না?? (পকেট থেকে একটা ফটো
আরশের দিকে বাড়িয়ে দিলেন মিঃ মেহরাব)
আরশ ফটোটা হাতে নিয়ে না দেখেই বলে-
--দেখতে হবেনা পাপা,, আমি জানি তোমার পছন্দ
কখনোই খারাপ হতে পারেনা... তুমি আমার জন্য
যেটাই করবে, ভালোর জন্যই করবে...!!
--আমার ছেলের মুখ থেকে এটাই এক্সেপ্ট
করছিলাম,, মেয়েটা আসলেই অনেক সুন্দর,, অনার্স
সেকেন্ড ইয়ারে পড়ে,, বিয়ের পর আমাদের এখানে
থেকেই অনার্স কমপ্লিট করবে...!!
অনার্স সেকেন্ড ইয়ার কথাটা শুনে বুকটা ধুক করে
উঠলো আরশের... হয়তো আরো একটা নিহা তার
লাইফে আসতে চলেছে... হয়তো আরশের মতো অন্য
কোনো আরশের চোখের পানিতে বালিশ ভিজিয়ে
নির্ঘুম রাত কাটানোর সময় এসে গেছে... হয়তো...!!

No comments